হিন্দুধর্মে এটি হিন্দু দর্শনের ছয়টি প্রাচীনতম (আস্তিক) শাখার অন্যতম। হিন্দু দর্শনে যোগের প্রধান শাখাগুলি হল রাজযোগ, কর্মযোগ, জ্ঞানযোগ, ভক্তিযোগ ও হঠযোগ।ভারতীয় হিন্দু দার্শনিক সর্বপল্লী রাধাকৃষ্ণনের মতে, পতঞ্জলির যোগসূত্রে যে যোগের উল্লেখ আছে, তা হিন্দু দর্শনের ছয়টি প্রধান শাখার অন্যতম। অন্যান্য যেসব হিন্দু শাস্ত্রগ্রন্থে যোগের সম্পর্কে আলোচনা করা হয়েছে সেগুলি হলো উপনিষদ্‌, ভগবদ্গীতা, হঠযোগ প্রদীপিকা, শিব সংহিতা ও বিভিন্ন তন্ত্রগ্রন্থ। (https://goo.gl/gsLjdH)

কিন্তু সমস্যা হচ্ছে বিজেপি ক্ষমতায় আসার পর মোদি চেয়েছে এই যোগব্যায়াম যেন সেক্যুলার লেভেল এটে মুসলমানদের মধ্যে ছড়িযে পড়ে। ঠিক যেভাবে সার্বজনিন দূর্গা পূজা, সার্বজনিন স্বরসতী পূজা, সাবর্জনিন বৈশাখী পূজা মুসলমানদের মধ্যে ছড়িয়ে দেওয়া হয়েছে। এ কারণে আজকে মোদি কথিত ইয়োগা দিবস পালন করতে গিয়ে ঘোষণা দিয়েছে, ইয়োগা বা যোগ ব্যায়াম কোন ধর্মীয় অনুসঙ্গ নয়,তোমরা সবাই (হিন্দু-মুসলমান সবাই) একে জীবনের অংশ করে নাও।(http://goo.gl/EgUoDx, http://goo.gl/668COQ)

বাংলাদেশেও আজকে সেই হিন্দু ধর্মীয় অনুসঙ্গ যোগব্যায়ামের অনুপ্রবেশ ঘটাতে মিরপুর ইনডোর স্টেডিয়ামে ইন্ডিয়ান হাইকশিনের উদ্যোগে যোগব্যায়াম করানো হয়। (http://goo.gl/mHaZL3) খুব ভালো কথা। বিশিষ্ট হিন্দু পোষক আওয়ামীলীগ যখন ক্ষমতায়, তখন বাংলাদেশে যোগপূজা ঢুকবে না তো কখন ঢুকবে?

যাই হোক সেটা ব্যাপার না, ব্যাপার হচ্ছে অনেকেই অবাক হয়েছেন, যোগ ব্যায়ামকারীদের মধ্যে অভিনেতা আরিফিন শুভকে দেখে। অনেকেই প্রশ্ন করেছেন- এখানে আরিফিন শুভ কেন ? আর কি উদ্দেশ্যেই বা তাকে আনা হয়েছে ?

মার্কিন রাশিয়া কোল্ড ওয়ার শুরু থেকে আমরা দেখেছি, স্প্যাই বা গোয়েন্দা হিসেবে সেলিব্রেটিদের বেশি চয়েস করা হয়। এর কারণ নায়ক-গায়ক-খেলোয়ার সেলিব্রেটিরা যা করে সাধারণ মানুষ তাদের অনুসরণেরই ধাবিত হয়। তাই নায়ক-গায়ক-খেলোয়ার সেলিব্রেটিদের যদি এজেন্ট বানানো যায়, তবে তাদের দ্বারা অনেক সহজেই সাধারণ মানুষকে নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব। আর গায়ক-নায়ক- খেলোয়ারদের কব্জা করাও সোজা। কারণ এরা টাকার জন্য কাজ করে, টাকা পেলেই এরা খুব সহজেই বিক্রি হয়ে যায়।

আমরা জানি, বাংলাদেশের অভিনেতা আরিফিন শুভ কলকাতার মেয়ে অর্পিতা সমাদ্দারকে বিয়ে করেছে (http://goo.gl/ASyrkH), তখনই কথা উঠেছিলো, আরিফিন শুভ কি ভারতের এজেন্সি নিলো নাকি ? আজকে আরিফিন শুভ যখন মিরপুর ইনোডার স্টেডিয়ামে ইন্ডিয়ান হাই কমিশনের উদ্যোগে যোগ ব্যায়াম করতে দাড়ালো, তখন বিষয়টি অনেকটা ক্লিয়ার হয়ে গেলো।

তবে আরিফিন শুভ ভাদা (ভারতীয় দালাল) হলো কি না হলো সেটা ফ্যাক্টর না, আসল ফ্যাক্টর হলো আরিফিন শুভকে ঐ অনুষ্ঠানে আনার দ্বারা বোঝা গেলো, ভারত চাইছে বাংলাদেশের মুসলমানদের মধ্যে যোগ পূজা প্রবেশ করুক, মোদির কথা মত হিন্দু ধর্মীয় অনুসঙ্গ হিসেবে না, সার্বজনিন হিসেবে।

তাই বাংলাদেশের মুসলমানরা সাবধান।

লেখক: নয়ন চ্যাটার্জি, ব্লগার

Advertisements