প্রায় দেড় দশক আগে ভারতের গুজরাটে মুসলিম আবাসিক এলাকা গুলবার্গ হাউজিংয়ে হামলা চালিয়ে ৬৯ জনকে হত্যার ঘটনায় ১১ জনের যাবজ্জীবন কারাদণ্ডের রায় ঘোষণা করে ঘটনাটিকে ‘সভ্য সমাজের ইতিহাসে অন্ধকারতম দিন’ বলেছে আদালত।

শুক্রবার আহমেদাবাদের বিশেষ আদালত এই রায়ে ১১ জনকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ডের পাশাপাশি একজনকে ১০ বছরের ও ১২ জনকে সাত বছরের কারাদণ্ড দেয়।

উন্মত্ত হিন্দুদের ওই হামলায় নিহত মুসলিম রাজনীতিক ও কংগ্রেস পার্টির সাবেক এমপি এহসান জাফরির স্ত্রী জাকিয়া জাফরি আসামিদের মৃত্যুদণ্ড না হওয়ায় ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, “আমরা যেখান থেকে শুরু করেছিলাম, সেখানেই ফিরে গেলাম।”

নারী ও শিশুসহ যাদের লক্ষ্য করে সেদিন হামলা চালানো হয়েছিল, তাদের সবাই ‘নিরপরাধ মানুষ’ ছিলেন- এই যুক্তি তুলে ধরে আইনজীবীরা অভিযুক্ত ২৪ জনের সবার জন্যই মৃত্যুদণ্ড চেয়েছিলেন।

এনডিটিভির এক প্রতিবেদনে উঠে এসেছে হত্যাকাণ্ডের বিচারের ধারাবাহিকতা।

# ২০০২ সালে গুজরাটজুড়ে জ্বলে ওঠা মুসলিমবিরোধী দাঙ্গায় দুই মাসে সহস্রাধিক মানুষ নিহত হন, যাদের বেশির ভাগ মুসলিম।

২০০২ সালে ভারতের গুজরাটে দাঙ্গার সময় গুলবার্গ হত্যাকাণ্ডের বিচারে শুক্রবার রায় ঘোষণার পর আহমেদাবাদের আদালত প্রাঙ্গণে পুলিশের গাড়িতে এক সাজাপ্রাপ্ত আসামি। ছবি: রয়টার্স ২০০২ সালে ভারতের গুজরাটে দাঙ্গার সময় গুলবার্গ হত্যাকাণ্ডের বিচারে শুক্রবার রায় ঘোষণার পর আহমেদাবাদের আদালত প্রাঙ্গণে পুলিশের গাড়িতে এক সাজাপ্রাপ্ত আসামি। ছবি: রয়টার্স ২০০২ সালের গুজরাট দাঙ্গার সময় মুসলিম আবাসিক এলাকা গুলবার্গ সোসাইটিতে নিজেদের পুড়ে যাওয়া বিধ্বস্ত ঘরে ক্রন্দনরত স্ত্রী সায়রাবেনকে সান্ত্বনা দিচ্ছেন ওই ঘটনায় বেঁচে যাওয়া সালিম ভাই সিন্ধি। ছবি: রয়টার্স ২০০২ সালের গুজরাট দাঙ্গার সময় মুসলিম আবাসিক এলাকা গুলবার্গ সোসাইটিতে নিজেদের পুড়ে যাওয়া বিধ্বস্ত ঘরে ক্রন্দনরত স্ত্রী সায়রাবেনকে সান্ত্বনা দিচ্ছেন ওই ঘটনায় বেঁচে যাওয়া সালিম ভাই সিন্ধি। ছবি: রয়টার্স # ২৮ ফেব্রুয়ারির গুলবার্গ হত্যাকাণ্ড ছিল দাঙ্গা চলার সময় একক ঘটনা, যেখানে সবচেয়ে বেশি মানুষের মৃত্যু হয়।

২০০২ সালের গুজরাট দাঙ্গার সময় মুসলিম আবাসিক এলাকা গুলবার্গ সোসাইটিতে নিজেদের পুড়ে যাওয়া বিধ্বস্ত ঘরে ক্রন্দনরত স্ত্রী সায়রাবেনকে সান্ত্বনা দিচ্ছেন ওই ঘটনায় বেঁচে যাওয়া সালিম ভাই সিন্ধি। ছবি: রয়টার্স
২০০২ সালের গুজরাট দাঙ্গার সময় মুসলিম আবাসিক এলাকা গুলবার্গ সোসাইটিতে নিজেদের পুড়ে যাওয়া বিধ্বস্ত ঘরে ক্রন্দনরত স্ত্রী সায়রাবেনকে সান্ত্বনা দিচ্ছেন ওই ঘটনায় বেঁচে যাওয়া সালিম ভাই সিন্ধি। ছবি: রয়টার্স

 

 

 

 

 

 

 

 

# তার আগের দিন ২৭ ফেব্রুয়ারি গোধরা স্টেশনে সবরমতী এক্সপ্রেসে আগুনে ৬০ জন করসেবক পুড়ে মরলে এই দাঙ্গার সূত্রপাত হয়।

# গুলবার্গ আবাসিক ওই নৃশংস হামলার সময় এহসান জাফরিকে কুপিয়ে ও পুড়িয়ে হত্যা করা হয়। সাবেক ওই সাংসদ ভীত-সন্ত্রস্ত কণ্ঠে পুলিশ ও জ্যেষ্ঠ রাজনীতিকদের অনেককে ফোন করে সাহায্য চাইলেও কেউ এগিয়ে আসেনি। তার স্ত্রী বলেছেন, মুখ্যমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর কাছেও সাহায্য চেয়েছিলেন জাফরি। কিন্তু কোনো কাজ হয়নি।

# ৬৬ জনকে অভিযুক্ত করে ২০০৯ সালের ৭ সেপ্টেম্বর গুলবার্গ হত্যাকাণ্ডের বিচার শুরুর পর পাঁচ জনের মৃত্যু হয় এবং একজন নিখোঁজ রয়েছে।

# বাকিদের মধ্যে দণ্ডপ্রাপ্ত এই ২৪ জনকে গত ২ জুন দোষী সাব্যস্ত করে আদালত। ওই দিনই ৩৬ জনকে প্রমাণের অভাবে খালাস দেওয়া হয়, যা নিয়ে ক্ষতিগ্রস্তদের পরিবারগুলোর মধ্যে অসন্তোষ রয়েছে।

# খালাস পাওয়াদের মধ্যে আছেন বিজেপি নেতা বিপিন পাটেল, যার বিরুদ্ধে উন্মত্ত ওই হামলায় ও হত্যাকাণ্ডে অংশ নেওয়ার অভিযোগ আনা হয়েছিল।

# ‘পরিকল্পিত হামলা’র কোনো প্রমাণ না পাওয়ায় ৬৬ জনের সবার বিরুদ্ধে আনা ‘অপরাধমূলক ষড়যন্ত্রের অভিযোগ’ শুক্রবার খারিজ করে দেয় আদালত।

২০০২ সালে ভারতের গুজরাটে দাঙ্গার সময় গুলবার্গ হত্যাকাণ্ডের বিচারে শুক্রবার রায় ঘোষণার পর আহমেদাবাদের আদালত প্রাঙ্গণে পুলিশের গাড়িতে এক সাজাপ্রাপ্ত আসামি। ছবি: রয়টার্স
২০০২ সালে ভারতের গুজরাটে দাঙ্গার সময় গুলবার্গ হত্যাকাণ্ডের বিচারে শুক্রবার রায় ঘোষণার পর আহমেদাবাদের আদালত প্রাঙ্গণে পুলিশের গাড়িতে এক সাজাপ্রাপ্ত আসামি। ছবি: রয়টার্স

 

 

 

 

 

 

 

 

# ২০০৮ সালে সুপ্রিম কোর্ট গুজরাট দাঙ্গার সময় সংঘটিত প্রধান যে ১০টি ঘটনার পুনঃতদন্তের দায়িত্ব পুলিশের কাছ থেকে বিশেষ তদন্ত দলের (এসআইটি) কাছে হস্তান্তরের নির্দেশ দিয়েছিল, সেগুলোর অন্যতম গুলবার্গ হত্যাকাণ্ড।

উৎসঃ   বিডিনিউজ
Advertisements