পেঙ্গুইনের সাথে মানুষের এক বিরল বন্ধুত্বের গল্প
পেঙ্গুইনের সাথে মানুষের এক বিরল বন্ধুত্বের গল্প

বর্তমানে আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমগুলোতে সবচেয়ে আলোচিত হৃদয়ছোয়া ঘটনা হচ্ছে ৭১ বছরের বৃদ্ধের সাথে এক পেঙ্গুইনের বন্ধুত্বের ঘটনা।

একটি পেঙ্গুইন প্রতি বছর ৫০০০ মাইল পথ পাড়ি দিয়ে তার জীবন রক্ষাকারী বন্ধুর সাথে দেখা করতে আসে।

এমন ঘটনাটি ঘটেছে ব্রাজিলে। অবসরগ্রহণ করা রাজমিস্ত্রি এবং খণ্ডকালীন মাছ শিকারি জোয়াও পেরেইরা ডিসুজা ২০১১ সালে ব্রাজিলের একটি দ্বীপের সমুদ্র সৈকতে একটি মৃতপ্রায় পেঙ্গুইনের বাচ্চা ক্ষুধার্ত এবং তেলবর্জ্য জড়ানো অবস্থায় খুঁজে পান।

তারপর তিনি পেঙ্গুইনটিকে বাড়িতে এনে পরিচর্চা করে সুস্থ্য করে তোলেন। জোয়াও দক্ষিণ আমেরিকান মাজেল্লানিক জাতীয় পেঙ্গুইনটির নাম দেন ডিনডিম। এরপর তিনি পেঙ্গুইন ছানাটিকে আবার সাগরে ছেড়ে দেন এবং প্রত্যাশা করেন পুনরায় দেখা না হবার।

কিন্তু তার এই ধারণা ভুল প্রমাণ করে ডিনডিম কয়েকমাস পরেই আবার সেই দ্বীপে ফিরে এসে জোয়াও এর সাথে দেখা করে এবং তার বাড়িতে যায়!

এখন পেঙ্গুইনটি বছরের ৮ মাস তার বন্ধুর জোয়াওয়ের সাথে থাকে আর বাকি সময়টুকু সে আর্জেন্টিনা ও চিলির সমুদ্র উপকূলের নিজ জন্মস্থানে কাঁটায়।

ধারণা করা হচ্ছে পেঙ্গুইনটি প্রায় ৫০০০ মাইল পথ সাতার কেটে তার জীবন রক্ষাকারীর সাথে দেখা করতে আসে।

জোয়াও বলেন, ‘আমি পেঙ্গুইনটিকে আমার সন্তানের মত ভালোবাসি, পেঙ্গুইনটিও আমাকে ভালোবাসে। সবাই বলতো যে, সে আর কখনো ফিরে আসবে না কিন্তু গত চার বছর ধরে সে আমাকে দেখতে আসছে।’

সূত্র: দ্য ইন্ডিপেন্ডেন্ট, আরটিএনএন

Advertisements