Electionপীরগঞ্জে ক্ষমতাসীনদের পরাজয়ের পরই খবর ছড়িয়ে পড়েছিল চারদিকে। প্রথম দফার ভোটের সঙ্গে মিলবেনা দ্বিতীয় দফার উপজেলা নির্বাচন। যেকোন মূল্যে প্রতিহত করা হবে বিএনপি-জামায়াত সমর্থকদের। বৃহস্পতিবার সকালে ১১৫টি উপজেলা নির্বাচনে ভোট গ্রহণ শুরুর পরপরই সে খবরের সত্যতা মিলতে শুরু করেছে। বিভিন্ন এলাকায় বিরোধী পক্ষের এজেন্টদেরকে বের করে দেয়া হচ্ছে ভোট গ্রহণের শুরুতেই। দেশের ৫২টি জেলার ১১৫টি উপজেলায় আজ সকাল ৮টা থেকে ভোট নেয়া শুরু হয়। এরপরই আসতে থাকে এজেন্ট বের করে দেয়ার খবর।
ভোলা থেকে মনিরুল ইসলাম জানান, ভোলার বোরহানুদ্দিন উপজেলায় ভোট শুরুর পরপরই বিভিন্ন কেন্দ্র থেকে বিএনপি সমর্থিত প্রার্থীর এজেন্টদেরকে মারধরের অভিযোগ উঠেছে। সকাল ৮টায় ভোট গ্রহণ শুরুর পর সোয়া আটটার মধ্যেই দেউলা ইউনিয়নের মনোয়ারা মহিলা মাদ্রাসা কেন্দ্রের এজেন্টদেরকে বের করে দেয়া হয় বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। সাচড়া ইউনিয়নের সকল কেন্দ্রে বিএনপি সমর্থক এজেন্টদের বের করে দেয়া হয়েছে। স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীরা তাদেরকে মারধর করেছে বলেও তারা জানিয়েছেন। যেসব এজেন্ট বের করে দেয়া হয়েছে তাদের কয়েক জনের নাম জানা গেছে। তারা হলেন পোলিন মোল্লা, জাহাঙ্গীর খান, ফজলুল হক শরীফ, মাসুদ বাবুর্চি, বাবুল পাচারি। এর মধ্যে পোলিন মোল্লা ও বাবুল পাচারি গুরুতর আহত হওয়ায় তাদেরকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। টবগী ইউনিয়নের চারটি কেন্দ্রের এজেন্টদেরকে বের করে দেয়া হয়েছে। স্থানীয় প্রশাসনের কাছে নালিশ করলেও কোন ব্যবস্থা নেয়া হয়নি বলে তারা অভিযোগ করেছেন। সাচড়া ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান বিএনপি নেতা বাচ্চু মোল্লা জানান, গতকাল রাতে মাইক্রোবাসে করে আওয়ামী লীগ কর্মীরা সাদা পোষাকের পুলিশ পরিচয় দিয়ে এজেন্টদের বাড়িতে গিয়ে হুমকী দিয়েছে। সকাল থেকে ভোট কেন্দ্রগুলোতে সেই হুমকী বাস্তবায়ন করছে।
পাটগ্রাম প্রতিনিধি জানান, লালমনিরহাটের পাটগ্রামে জামায়াত সমর্থিত চোয়ারমান প্রার্থীর এজেন্টদেরকে বের করে দেয়া হয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। আজ সকালে ভোট গ্রহণ শুরুর পরপরই বিভিন্ন কেন্দ্র থেকে এ খবর পাওয়া গেছে। বাউড়া উচ্চবিদ্যালয় কেন্দ্রে, ছেংবানী প্রথমিক বিদ্যালয়,  বোচারহাট, আশুয়াপাড়া, ভেড়ভেড়িয়া, কাশিরডাঙ্গা, চংড়িডাঙ্গা, ঘোনাবাড়ী, বুড়িমারি মেডিকেল কেন্দ্র থেকে এসব এজেন্টদেরকে বের করে দেয়া হয়েছে বলে জানা গেছে। রুদ্র মিজান, কেরানীগঞ্জ থেকে জানান, কেরানীগঞ্জের বেশ কয়েকটি কেন্দ্র থেকে ১৯দল সমর্থিত প্রার্থীর এজেন্টদেরকে বের করে দেয়া হয়েছে। প্রার্থী নাজিম উদ্দিন মোস্তান অভিযোগ করেছেন, কালিগঞ্জ ও কৈবর্তপাড়া কেন্দ্র থেকে এজেন্ট বের করে দিয়েছে ছাত্রলীগ ও যুবলীগ নেতাকর্মীরা। ঘটনা যাচাই করতে সরেজমিনে কালিগঞ্জ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে গিয়ে দেখা যায় একটি বুথে নাজিউদ্দিন মোস্তানের কোন এজেন্ট নেই। খোঁজ নিয়ে যানা যায়, ভোট গ্রহণ শুরুর পর থেকেই ওই বুথে বিএনপি সমর্থক এজেন্ট প্রবেশ করতে পারেননি। বিভিন্ন কেন্দ্র ঘুরে দেখা গেছে ভোটারদের উপস্থিতি খুবই কম। ভোট কেন্দ্রে তেমন দীর্ঘ লাইন দেখা যায়নি। বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে ভোটারদের উপস্থিতি বাড়বে বলে আশা করছেন সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা।
ফেনী প্রতিনিধি জানান, পরশুরাম এবং পশ্চিম সোনাপুরের ৫টি কেন্দ্র থেকে ১৯ দল সমর্থিত প্রার্থীর পোলিং এজেন্টদেরকে বের করে দেয়া হয়েছে। বৃহস্পতিবার সকালে নির্ধারিত সময়ে ভোট শুরু হওয়ার ঘন্টাখানেক পরে তাদেরকে মারধর করে বের করে দেয় স্থানীয় আওয়ামী লীগ কর্মীরা। স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, পশ্চিম সোনাপুরের একটি ভোট কেন্দ্রে ভোট গ্রহণ শুরু হওয়ার কিছুক্ষণ পরে কয়েকটি ককটেলের বিস্ফোরণ ঘটায় দুর্বৃত্তরা। এসময় স্থানীয় আওয়ামী লীগ কর্মীরা এসে বিএনপি সমর্থিত প্রার্থীর পোলিং এজেন্টদেরকে কেন্দ্র থেকে বের করে দেয়। কর্তব্যরত প্রিজাইডিং অফিসার ড. আহসান উল্লাহ ককটেল বিস্ফোরণের ঘটনা স্বীকার করলেও এজেন্টদেরকে বের করে দেওয়ার কথা জানেন না বলে জানান। এদিকে পরশুরাম উপজেলার ভনুকুন্ঠা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, উত্তর কেতরাঙ্গা মাদ্রাসা, দক্ষিণ কেতরাঙ্গা জুনিয়র উচ্চ বিদ্যালয়, দক্ষিণ গোথুমা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ভোট কেন্দ্র থেকে জোরপূর্বক ১৯ দল সমর্থিত প্রার্থীর পোলিং এজেন্টদেরকে বের করে দিয়েছে আওয়ামী লীগ কর্মীরা। এছাড়া মানিকগঞ্জ ও বরিশাল থেকে একই অভিযোগ পাওয়া গেছে। উল্লেখ্য, ১১৫ উপজেলার মোট ১ কোটি ৯৫ লাখ ৯২ হাজার ৮৬৮ জন ভোটার তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করবেন। এর মধ্যে পুরুষ ভোটারের সংখ্যা ৯৮ লাখ ৫ হাজার ১৫০ জন। মহিলা ভোটারের সংখ্যা ৯৭ লাখ ৮৭ হাজার ৭১৮ জন। নির্বাচনের নিরাপত্তার জন্য দুদিন আগ থেকেই স্ট্রাইকিং ফোর্স হিসাবে মাঠে রয়েছে সেনাবাহিনীর সদস্যরা। এছাড়া র‌্যাব, পুলিশ বিজিবি, আনসার, কোষ্টগার্ড ও গ্রাম পুলিশ সদস্যরা দায়িত্ব পালন করছেন।

সূত্র: মানবজমিন, ২৭ ফেব্রুয়ারী ১৪

Advertisements